রমজানের গুরুত্বপূর্ণ যত আমল – bnewsbd.com

ধর্ম

নিজস্ব প্রতিনিধি, বিনিউজবিডি.ডটকম :

epsoon tv 1

মাহে রমজান অফুরন্ত রহমত, বরকত, কল্যাণ ও মঙ্গল পূর্ণ মাস। জাগতিক লোভ-লালসা, হিংসা-বিদ্বেষ, প্রবৃত্তির অনুসরণ ইত্যাদি মানবিক দূর্বলতা থেকে দূরে থেকে আত্মসংশোধনের মাধ্যমে খোদায়ী গুণাবলী অর্জনের অবারিত সুযোগ এনে দেয়- পবিত্র মাহে রমজান।

ইসলামের মৌলিক পাঁচটি ভিত্তির অন্যতম একটি হলো রোজা। তাই কেউ এটি অস্বীকার করলে কাফের হয়ে যাবে এবং রোজা নিয়ে কটুক্তি করলে ঈমান চলে যাবে। 

ধনী-গরীব নির্বিশেষে সব বুদ্ধিমান সাবালক মুসলিম নর-নারীর উপর রোজা ফরজ। শরয়ী কোন ওজর ব্যতীত রোজা না রাখলে কবীরা গুনাহ হবে।

রোজার ইতিহাস বহু প্রাচীন। মুসলমানদের পূর্বেও অন্যান্য ধর্মে রোজার বিধান চালু ছিলো। 

যেমন আল্লাহ তায়ালা কুরআনুল কারীমে ইরশাদ করেন- ‘ হে ঈমানদারগণ! তোমাদের উপর রোজা ফরজ করা হয়েছে। যেমন তোমাদের পূর্ববর্তীদের উপর ফরজ করা হয়েছিলো। নিঃসন্দেহে তোমরা (এ রোজার মাধ্যমে) মুত্তাকি (খোদাভীরু) হতে পারবে। (সুরা বাকারা- ১৮৩)

রোজার সংজ্ঞা:

আল্লাহর নৈকট্য অর্জনের উদ্দেশ্যে ইবাদতের নিয়তে সুবহে সাদিক (সেহরীর শেষ সময় ও ফজরের ওয়াক্ত শুরু হওয়ার সময়) থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত পানাহার, সহবাস ও রোজা ভঙ্গকারী যাবতীয় কাজ হতে বিরত থাকা।

রোজা, সেহরী ও ইফতারের কিছু মাসায়েল 

*রমজানের রোজার নিয়ত করা ফরজ। নিয়ত ব্যতীত সারাদিন পানাহার ও যৌনতৃপ্তি থেকে বিরত থাকলেও রোযা হবে না।

*মুখে নিয়ত করা জরুরী নয়। অন্তরে নিয়ত করলেই যথেষ্ট হবে, তবে মুখে নিয়ত করা উত্তম। মুখে নিয়ত করলেও আরবীতে হওয়া জরুরী নয়- যে কোন ভাষায় নিয়ত করা যায়। আরবীতে করলে এভাবে করা- نَوَيْتُ بِصَوْمِ الْيَوْمِ অথবা بِصَوْمِ غَدٍ نَوَيْتُ বাংলায় : ‘আমি আজ রোজা রাখার নিয়ত করলাম।’

সেহরি

* সেহরি খাওয়া জরুরী নয় তবে সেহরি খাওয়া সুন্নত। অনেক ফজিলতের আমল। ক্ষুধা না লাগলে বা খেতে ইচ্ছে না করলেও সেহরির ফজিলত লাভের নিয়তে যা-ই হোক কিছু পানাহার করে নেয়া উত্তম।

* নিদ্রার কারণে সেহরি খেতে না পারলেও রোজা রাখতে হবে। 

* বিলম্বে সেহরি খাওয়া উত্তম।

ইফতার 

* সূর্য অস্তমিত হওয়ার পর বিলম্ব না করে তাড়াতাড়ি ইফতার করা মুস্তাহাব। বিলম্বে ইফতার করা মাকরূহ।
 
* সূর্য অস্ত যাওয়ার ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়ার পরই ইফতার করতে হবে। শুধু ঘড়ি বা আজানের উপর নির্ভর করা ভালো নয়। কারণ তাতে ভুল হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

* সবচেয়ে উত্তম হলো খেজুর দ্বারা ইফতার করা। তারপর কোন মিষ্টি জাতীয় জিনিষ দ্বারা ও তারপর পানি দ্বারা করা ভালো।

*ইফতার করার পূর্বে দোয়া পড়া মুস্তাহাব। নিম্মোক্ত দু‘আটি পড়া যেতে পারে-
 اللَّهُمَّ لَكَ صُمْتُ وَبِكَ آمَنْتُ وَعَلَيْكَ تَوَكَّلْتُ وَعَلَى رِزْقِكَ اَفْطَرْتُ

* ইফতারের সময় দোয়া কবুল হয়। তাই ইফতারের পূর্বে বা কিছু ইফতার করে বা ইফতার থেকে সম্পূর্ণ ফারেগ হয়ে দোয়া করা মুস্তাহাব।

রোজার ফজিলত

সাধারণভাবে যে কোনো রোজাই অত্যন্ত পূণ্য ও সওয়াবের কাজ। এ প্রসঙ্গে অনেক হাদিস বর্ণিত হয়েছে। 

এক হাদিসে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন- যে আল্লাহর রাস্তায় একদিন রোযা রাখবে আল্লাহ তা‘আলা সেই দিনের পরিবর্তে তার চেহারাকে জাহান্নাম থেকে সত্তর বছরের দূরত্বে সরিয়ে দিবেন।’ (বুখারি-২৮৪০)

* রোজা একান্তভাবে আমার-ই জন্যে। আর আমিই তার প্রতিদান দিবো। (বুখারি-১৯০৪)

রমজানের রোজার বিশেষ ফজিলত

সাধারণ রোজার পাশাপাশি রমজান মাসের রোজার বিশেষ কতিপয় বৈশিষ্ট্য ও ফজিলত বর্ণিত হয়েছে। 

* রোজাদারের (ক্ষুধার কারণে) মুখের গন্ধ আল্লাহর কাছে মেশকের (এক প্রকার দারুণ সুগন্ধি) চেয়েও অধিক প্রিয়।

* ফেরেশতারা রোজাদারের জন্যে ইফতার করা পর্যন্ত ইস্তেগফার তথা গুনাহ মাফ চাইতে থাকে।

* রমজানের প্রতিদিন আল্লাহ তা‘আলা জান্নাতকে সুসজ্জিত করে বলেন- ‘আমার (রোজাদার) বান্দারা অচিরেই তাদের পরিশ্রম ও কষ্ট-ক্লেশ দূরে সরিয়ে তোমার কাছে পৌঁছে যাবে।

* এই মাসে লাইলাতুল কদর রয়েছে। যে রাত হাজার রাতের চেয়েও উত্তম। যে এ রাত্রের কল্যাণ থেকে বঞ্চিত হলো তবে সে সকল কল্যাণ থেকে বঞ্চিত হলো।

* রমজানের শেষ রাতে রোজাদারদের ক্ষমা ঘোষনা করা হয়।

* এ মাসে একটি নফল ইবাদত (সওয়াবের ক্ষেত্রে) ফরজের সমতূল্য। আর একটি ফরজ সত্তরটি ফরজের সমতূল্য।

* যে পূর্ণ ঈমান ও সওয়াবের আশায় রমজানের রোজা রাখবে তার পূর্ববর্তী সকল গুনাহ মাফ করে দেয়া হয়।

রমজানে বিশেষভাবে করণীয়

কুরআন তিলাওয়াতে যত্ম নেয়া: রমজান হলো কুরআনের মাস। এ মাসে হযরত জিব্রাইল (আ.) রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে পূর্ণ কুরআন উপস্থাপন করতেন। 

সাহাবায়ে কেরাম রমজান মাসে কুরআন নিয়ে ব্যতিব্যস্ত হয়ে পড়তেন। অনেক সাহাবী রমজানের প্রতিদিন কুরআন খতম করতেন। বহু পূর্বসুরী রমজান মাসে প্রতি তিন দিনে কুরআন খতম করতেন। তাই কুরআন তেলাওয়াতে বিশেষভাবে যত্ম নেয়া উচিত। 

তারাবীহসহ আল্লাহ তায়ালার ইবাদাতে রাত্রি জাগরণ: হযরত উমর (রা.) রমজানের মধ্যরাতের পরিবার-পরিজনকে জাগিয়ে দিয়ে ‘নামাজ’ ‘নামাজ’ বলে উৎসাহ দিতেন। হযরত উসমান (রা.) রমজানের রাত্রে এমন দীর্ঘ নামায পড়তেন যে অনেক সময় এক রাকাতে পুরো কুরআন পড়ে ফেলতেন। 

দান-সদকা করা: রমজান মাসে তাক্বওয়া অর্জনের আরেকটি মাধ্যম হলো সদকা। নিজের কষ্টার্জিত সম্পদ থেকে স্বত্ব ত্যাগ করে গরীব-দুঃখীদের মাঝে বিলিয়ে দেয়াকে সদকা বলে। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ছিলেন সবচে’ বড় দানবীর। আর রমজান মাসে তিনি সর্বাধিক দান-সদকা করতেন। তিনি বলেন- সর্বোৎকৃষ্ট সদকা হলো রমজানের সদকা।
 
রোজাদারকে ইফতার করানো: হযরত সালমান (রা.) থেকে বর্ণিত হয়েছে- রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন- ‘যে রমজান মাসে কোন রোজাদারের ইফতারের ব্যবস্থা করবে তবে তার পাপ মোচন ও জাহান্নাম থেকে মুক্তির কারণ হবে এবং রোজাদারের মূল প্রতিদানের কোন অংশ কমানো ব্যতিরেকে সে রোযাদারের সমান প্রতিদান পাবে।’ 

সাহাবারা বলে ওঠলেন- ইয়া রাসূলুল্লাহ! ইফতার করানোর মতো সামর্থ্য তো আমাদের সবার নেই! তখন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন- ‘যারা একটুখানি দুধ বা একটি খেজুর বা এক ঢোক পানি দিয়ে হলেও কোন রোজাদারকে ইফতার করাবে আল্লাহ তা‘য়ালা তাদেরকেও এই সওয়াব দিবেন।’ (ইবনে খুযাইমা ও বায়হাকী)

ই‘তিকাফ: রমজান মাসের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট মণ্ডিত আমল হলো শেষ দশ দিন ই‘তিকাফে থাকা। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম প্রতি বছর রমজানের শেষ দশ দিন ই‘তিকাফ থাকতেন। তবে তার ইন্তিকালের বছর তিনি বিশ দিন ই‘তিকাফ ছিলেন। 

সুতরাং ই‘তিকাফ যে কোন সময় হতে পারে। কিন্তু অধিক তাৎপর্যপূর্ণ ও গুরুত্ববহ হলো রমজানের শেষ দশ দিন ই‘তিকাফ থাকা। যাতে লাইলাতুল ক্দর লাভের সৌভাগ্য হয়।

লাইলাতুল কদর: রমজান মাসের আরেক নেয়ামত হলো লাইলাতুল কদর। রমজানের শেষ দশ দিনের যে কোন বেজোড় রাত লাইলাতুল ক্দর হতে পারে। তবে অধিকাংশ উলামায়ে কেরামের মতে ২৭ তম রাত্রি লাইলাতুল ক্দর হওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি। 

লাইলাতুল ক্দরের গুরুত্ব ও মর্যাদা সম্বন্ধে আল্লাহ তায়ালা বলেন- ‘অবশ্যই আমি এ কুরআনকে লাইলাতুল ক্দরে অবতীর্ণ করেছি। আপনি (হে নবী) কি জানেন- লাইলাতুল ক্দর কি? তা হচ্ছে এমন এক রাত যা হাজার মাস অপেক্ষা উত্তম।’ (সুরা ক্দর:১-৩) 

সদকাতুল ফিতর: সদকাতুল ফিতর রমজান মাসে দিতে হয় এমন একটি অনুদান। যাতে মুসলিম সমাজের অভাবী ব্যক্তিরাও যেন স্বাচ্ছন্দে ঈদ উদযাপন করতে পারে। ঈদের নামাজের পূর্বেই এই সদকা আদায় করতে হয়। সাহাবায়ে কেরাম ঈদের বেশ কয়েক দিন পূর্বে অভাবীদের কাছে এ সদকা পৌঁছে দিতেন। যাতে তারা ঈদের জামা-কাপড় এবং বিভিন্ন খাদ্যসামগ্রী কেনাকাটা করে খুশি মনে ঈদ উদযাপন করতে পারে ।

রমজানে বর্জনীয়:

সর্বপ্রকার গুনাহ বা পাপকর্ম ছেড়ে দেয়া। অনর্থক কাজ-কর্ম ও গল্প- গুজবে সময় নষ্ট না করা। অন্যের গীবত-শেকায়াত তথা পরনিন্দা না করা। 

নাচ-গান, জুয়া ও সব ধরনের অশ্লীলতা-বেহায়াপনায় লিপ্ত না হওয়া। দিনের বেলা হোটেল-রেস্তোঁরা ইত্যাদি খোলা না রাখা ।

রমজানে সংযম ও আত্মত্যাগের অনুশীলন এবং সেই সাথে ইসলামভিত্তিক ন্যায়-নিষ্ঠা, সত্য ও সততা প্রতিষ্ঠার দৃঢ় প্রত্যয় গ্রহণ প্রয়োজন। 

ন্যায়-নিষ্ঠা ও ইনসাফ প্রতিষ্ঠার জন্যে ত্যাগ ইতিহাসের ধারাবাহিকতায় প্রমাণিত, শাশ্বত ও জীবন্ত। নৈতিকতা, শালীনতা ও একত্রে ইফতার গ্রহণের মাধ্যমে সহমর্মিতার সদভ্যাস গড়ে তুলে- ব্যষ্টিক ও সামষ্টিক  কল্যাণ সাধনের পথ প্রশস্ত করার অনুশীলন করার  মাস হচ্ছে- রমজান। 

বাঙ্গালী মননে চিরায়ত ইসলামী মূল্যবোধ, ধ্যান-ধারণা, চরিত্র, ধর্ম ও আদর্শ রক্ষা এবং সর্বগ্রাসী অপরাধ প্রবণতা রোধের অনুশীলনের চেতনা জোরদার  করার দারুণ সুযোগ আসে এ মাসে।

পরম করুণাময় অতি দয়ালু আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের সকাশে সকাতর আর্তি- তিনি যেন আমাদের সকলকে মাহে রমজানের পবিত্রতা রক্ষা করার তৌফিক দান করেন এবং তার অফুরান অনুকম্পা ও করুণার বারিধারায় আমাদের সিক্ত করেন।

epsoon tv 1

বিনিউজবিডি.ডটকম

আধুনিক বাংলাদেশ গড়ার দৃঢ় প্রত্যয়ে সংবাদ পরিবেশনে দৃঢ় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ নিয়ে “বিনিউজবিডি.ডটকম” বাংলাদেশের প্রতিটি বিভাগ, জেলা, উপজেলা, গ্রামে-গঞ্জে ঘটে যাওয়া দৈনন্দিন ঘটনাবলী যা মানুষের দৃষ্টি ও উপলব্ধিতে নাড়া দেয় এরূপ ঘটনা যেমন, শিক্ষা,স্বাস্থ্য, পরিবেশ, সামাজিক উন্নয়ন, অপরাধ, দুর্ঘটনা ও অন্যান্য যে কোন আলোচিত বিষয়ের দৃষ্টি নন্দন তথ্য চিত্রসহ সংবাদ পাঠিয়ে সাংবাদিক হিসেবে নিজেকে আত্ম প্রকাশ করুন।

প্রতি মুহুর্তের খবর মুহুর্তেই পাঠকের মাঝে পৌছে দেয়ার লক্ষ্য কাজ করে যাচ্ছে একঝাঁক সাহসী তরুণ সংবাদ কর্মী। এরই ধারাবাহিকতায় স্বল্প সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ সহ দেশের বাহিরে বিভিন্ন দেশে সংবাদদাতা নিয়োগ দেয়া হচ্ছে।

বিদেশের মাটিতে অবস্থানরত লেখা-লেখিতে আগ্রহী যে কোনো বাংলাদেশীও প্রবাসী নাগরিক “বিনিউজবিডি.ডটকম” এর সংবাদদাতা/প্রতিনিধি হিসেবে আবেদন করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *