মঠবাড়িয়ায় ক্রেতার সংকটে মন্দা যাচ্ছে তরমুজ বাজার – bnewsbd.com

সারাদেশ

নিজস্ব প্রতিনিধি, বিনিউজবিডি.ডটকম :

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) সংবাদদাতা: প্রথম ও দ্বিতীয় দফার চলমান লকডাউনের কারনে মঠবাড়িয়া পৌর শহরের তরমুজ বাজারগুলোতে ক্রেতা শূন্য। ব্যবসায়ীদের প্রত্যাশার ক্রেতা মিলছে না। নানা ধরনের পর্যাপ্ত তরমুজ মজুদ থাকলেও মন্দা যাচ্ছে বাজার। পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতা দোকানের সামনে ও পিছনে শত শত তরমুজের পশরা সাজিয়ে বসলেও ক্রেতার সংকটে লোকসানের মুখে পড়েছেন এখানকার মৌসুম ফল ব্যবসায়ীরা।
মঠবাড়িয়ায় মৌসুমী ফলের সবচেয়ে বড় পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান “মেসার্স বাংলাদেশ ফল ভান্ডার” সহ আশপাশের বেশ কয়েকটি স্থানে তরমুজ বিক্রয়ের পয়েন্টগুলো ঘুরে দেখা যায় ক্রেতার অভাবে অলস সময় পাড় করচ্ছে বিক্রেতারা। রোজাকে কেন্দ্র করে মৌসুমী এ ফলটির ভালো দাম পাওয়ার আশায় পটুয়াখালী,রাঙ্গাবালী, আমতলী, ভোলা থেকে প্রচুর চালান আনেন এখানকার ক্ষুদ্র ও পাইকারি ব্যবসায়ীরা। হঠাৎ দুই দফায় লকডাউনের কারণে আগেবাগে আনা এসব চালান নিয়ে বিপাকে পড়ে ব্যবসায়ীরা। যেখানে গ্রীষ্মের প্রখর তাপদাহের কারণে রসালো ফল তরমুজের চাহিদা থাকার কথা তুঙ্গে সেখানে লাভতো দূরের কথা চালানের টাকাই উঠাতে পারছে না বলে জানানা বিক্রেতারা। অনেকে আবার মজুদ করা তরমুজে পঁচন ধরার ভয়ে কম দামেই বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছে। কম দামে ছেড়ে দিয়েও পাচ্ছে না ক্রেতা। ক্রেতা শূন্য বাজারে দেখা যায়, সবুজ ও কালো দুই ধরনের তরমুজ বাজারে এসেছে। তরমুজের আকার-আকৃতি অনুসারে দামের ভিন্নতা রয়েছে। সবচেয়ে বড় তরমুজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা করে এবং মাঝারি ও ছোট সাইজের তরমুজ কেজি প্রতি ৪০ টাকা দরে বিক্রি করতে দেখা যায়। তবে সাইজ ছোট-বড় যাই হোক না কেন এবারই প্রথম বাজারে কেজি হিসেবে তরমুজ বিক্রি হচ্ছে। বিগত মৌসুমগুলোর মত এবার আর পিস হিসেবে তরমুজ বিক্রিই হয়নি। শুরু থেকেই বিক্রেতারা কেজি হিসেবে বিক্রি করে আসচ্ছেন।
ফল ব্যবসায়ী মেসার্স বাংলাদেশ ফল ভান্ডার এর প্রোপাইটার আব্দুল খালেক জোমাদ্দার বলেন, আমার এখন থেকে উপজেলার বিভিন্ন বাজার যেমন তুষখালী, মিরুখালী, সাপলেজা সহ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে তরমুজা যায়। কিন্তু লকডাউনের কারণে ক্রেতা না থাকায় বিক্রেতারা আর আগের মত তরমুজ নিচ্ছে না। ফলে মজুদ করা তরমুজ থেকে প্রতিদিনই ৩০ থেকে ৪০ টি তরমুজ কোন না কোন ভাবে পঁচন ধরে। কাঁচামাল মজুদ করারও কোনো সুযোগ নেই। প্রথম চালান ক্রয়ের পর হঠাৎ লকডাউনের ঘোষণা আসায় পৌর এলাকায় লোক সমাগম কমে যায়। তখন থেকেই দেখা দিয়েছে ক্রেতা সংকট।
খুরচা বিক্রেতা আমির হোসেন জানান, এক সপ্তাহ আগে তরমুজ কিনেছিলাম লাভের আশায়। লকডাউনের পর থেকে ক্রেতা কমে যাওয়ায় তরমুজ বিক্রি করতে পারছি না। তরমুজে পঁচন ধরে যাচ্ছে। খুব কস্টে আছি। শুনছি সোমরার থেকে লকডাউন উঠিয়ে নিবে কিন্তু তার আগে তো পঁচনের হাত থেকে রক্ষা করা যাচ্ছে না।

বিনিউজবিডি.ডটকম

আধুনিক বাংলাদেশ গড়ার দৃঢ় প্রত্যয়ে সংবাদ পরিবেশনে দৃঢ় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ নিয়ে “বিনিউজবিডি.ডটকম” বাংলাদেশের প্রতিটি বিভাগ, জেলা, উপজেলা, গ্রামে-গঞ্জে ঘটে যাওয়া দৈনন্দিন ঘটনাবলী যা মানুষের দৃষ্টি ও উপলব্ধিতে নাড়া দেয় এরূপ ঘটনা যেমন, শিক্ষা,স্বাস্থ্য, পরিবেশ, সামাজিক উন্নয়ন, অপরাধ, দুর্ঘটনা ও অন্যান্য যে কোন আলোচিত বিষয়ের দৃষ্টি নন্দন তথ্য চিত্রসহ সংবাদ পাঠিয়ে সাংবাদিক হিসেবে নিজেকে আত্ম প্রকাশ করুন।

প্রতি মুহুর্তের খবর মুহুর্তেই পাঠকের মাঝে পৌছে দেয়ার লক্ষ্য কাজ করে যাচ্ছে একঝাঁক সাহসী তরুণ সংবাদ কর্মী। এরই ধারাবাহিকতায় স্বল্প সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ সহ দেশের বাহিরে বিভিন্ন দেশে সংবাদদাতা নিয়োগ দেয়া হচ্ছে।

বিদেশের মাটিতে অবস্থানরত লেখা-লেখিতে আগ্রহী যে কোনো বাংলাদেশীও প্রবাসী নাগরিক “বিনিউজবিডি.ডটকম” এর সংবাদদাতা/প্রতিনিধি হিসেবে আবেদন করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *