খামে করে দেশে এসেছিল ভয়ঙ্কর মাদক এলএসডির ৬টি চালান – bnewsbd.com

অনুসন্ধান

নিজস্ব প্রতিনিধি, বিনিউজবিডি.ডটকম :

epsoon tv 1

সম্প্রতি দেশে প্রথমবারের মতো ভয়ঙ্কর নতুন মাদক এলএসডি (লাইসার্জিক অ্যাসিড ডাইথ্যালামাইড) জব্দ করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। এ পর্যন্ত এলএসডির অন্তত ছয়টি চালান এসেছে দেশে বলে প্রাথমিক তদন্তে জানতে পেরেছে তদন্ত সংশ্লিষ্টরা।

তবে দেশে অনেক আগে থেকেই এই ভয়ঙ্কর মাদক এলএসডি ব্যবহার হয়ে আসছে। ২০১৯ সালের জুলাই মাসে দেশে প্রথম এলএসডি মাদক ধরা পড়ে। সে সময় দুই তরুণকে গ্রেপ্তারও করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর (ডিএনসি)। এভাবেই দেশে এলএসডি ব্যবহারের বিষয়টি সামনে আসে।

এবারের এলএসডি বেচা-কেনার পদ্ধতিটি ইয়াবা, গাঁজা ও অন্যসব মাদকের চেয়ে একটু একটু অন্যরকম ছিল। প্রায় এক বছর ধরে ফেসবুকে ‘আপনার আব্বা’ এবং ‘বেটার ব্রউরি অ্যান্ড বিয়ন্ড’ নামে দুটি গ্রুপের মাধ্যমে এলএসডির ব্যবসা চলছিল।

এই মাদক বিক্রির সঙ্গে জড়িত বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন শিক্ষার্থীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ। তারা হলো- নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএর ছাত্র সাদমান সাকিব লুপল, আসহাব ওয়াদুদ তুর্জ এবং ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটির ছাত্র আদিব আশরাফ।

গত বুধবার (২৬ মে) এলএসডি উদ্ধার ও তিন তরুণকে গ্রেপ্তারের পর ১০ মাস পর বিষয়টি আবার সামনে এলো। গ্রেপ্তারকৃতরা নেদারল্যান্ডস থেকে খামে করে এই মাদক আমদানি করে। তদন্ত-সংশ্নিষ্টরা প্রাথমিক তদন্তে জানতে পেরেছেন, এ পর্যন্ত এলএসডির অন্তত ছয়টি চালান এসেছে দেশে। ডিবি সূত্র জানিয়েছে, গ্রেপ্তারকৃতরা স্বীকার করেছে দুই বছর ধরে তারা এলএসডি আমদানি করছে।

দেশে এখন পর্যন্ত নানা ধরনের মাদকের ব্যবহার রয়েছে। এগুলো রুখতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী যথেষ্ঠ তৎপর রয়েছে। কিন্তু এর মধ্যে নতুন এ ভয়ঙ্কর মাদক অভিভাবকদের মধ্যে আরও নতুন শঙ্কা ছড়িয়ে দিল।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ আহসানুল জব্বার সংবাদমাধ্যমকে বলেন, এলএসডি এখনও সেভাবে ছড়ায়নি। তবে এটি বন্ধ করতে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। আমদানি রোধ করতে বিমানবন্দরে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। প্রযুক্তিগতভাবেও এটি রোধ করতে চেষ্টা করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

ডিবির অতিরিক্ত কমিশনার একেএম হাফিজ আক্তার বলেন, কোনোভাবেই যেন নতুন ভয়ংকর এলএসডিসহ যে কোনো মাদক বিস্তার লাভ করতে না পারে, সেজন্য ছাত্র, শিক্ষক, অভিভাবকসহ সবাইকে সচেতন হতে হবে।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, ২০১৯ সালে এক প্রবাসী বাংলাদেশির মাধ্যমে দেশে এলএসডি বেচাকেনার বিষয়টি জানতে পারে অধিদপ্তরের গোয়েন্দা বিভাগ। প্রাথমিকভাবে তারা জানতে পারেন, গুলশান, উত্তরা ও কাফরুল এলাকায় এলএসডি ব্যবহার হচ্ছে। এর গ্রাহক উচ্চবিত্ত পরিবারের মাদকাসক্ত সন্তানরা। একটি ‘ক্লোজ গ্রুপের’ মাধ্যমে ওই মাদক কেনাবেচা হয়। এর পরই এই গ্রুপের সদস্য হন গোয়েন্দা কর্মকর্তারা।

অধিদপ্তর সূত্রে আরও জানা যায়, ২০১৯ সালের ১৪ জুলাই রাতে কাফরুল এলাকার একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে পাঁচ মিলিগ্রাম তরল এলএসডি জব্দ করে ডিএনসির ঢাকা গোয়েন্দা বিভাগ। ৪৬টি এলএসডি স্ট্রিপও জব্দ করা হয়। গ্রেপ্তার করা হয় দুই তরুণ ইয়াসের রিদওয়ান আনান ও সৈয়দ আহনাদ আতিফ মাহমুদকে। তখন তাদের বয়স ২০ বছর। তাদের বিরুদ্ধে ১৫ জুলাই কাফরুল থানায় মামলা হয়। মামলার বাদী হয়েছিলেন ডিএনসির গোয়েন্দা বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক ফজলুল হক খান। মামলাটি তদন্ত করেন পর্যায়ক্রমে দু’জন কর্মকর্তা।

ডিএনসির ঢাকা গোয়েন্দা বিভাগের উপপরিচালক শামীম আহমেদ বলেন, তদন্ত শেষে দুই তরুণকে অভিযুক্ত করে ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে আদালতে চার্জশিট দেওয়া হয়। মামলাটি বর্তমানে বিচারাধীন।

গত ১৫ মে কার্জন হল এলাকায় তিন বন্ধুর সঙ্গে মাদক সেবন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য বিজ্ঞান ও গ্রন্থাগার ব্যবস্থাপনা বিভাগের ছাত্র হাফিজুর রহমান। এর প্রতিক্রিয়া শুরু হলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে এক ডাব বিক্রেতার ভ্যানে রাখা দা নিয়ে নিজের গলায় আঘাত করেন তিনি। কিছুক্ষণ পর হাসপাতালে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন হাফিজুর।

হাফিজুর রহমানের মৃত্যুর ঘটনা তদন্ত করতে গিয়ে ‘লাস্ট স্টেট অব ড্রাগ’টির সন্ধান পায় ঢাকা মহানগর পুলিশ। তদন্ত করে গিয়ে সংশ্নিষ্টরা জানতে পারেন, হাফিজুর নতুন ধরনের মাদক সেবন করতেন। তখন আচরণও বদলে যেত তার। তার পরিচিত কয়েকজনের তথ্য পায় ডিবি। তারা এলএসডি বিক্রি ও সেবন করেন। তাদের কাছ থেকে ২০০ ব্লট এলএসডি উদ্ধার করা হয়। তারা ফেসবুক ক্লোজ গ্রুপের মাধ্যমে এলএসডির গ্রাহক সংগ্রহ করত।

যে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে ধানমন্ডি থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়েছে। তাদের রিমান্ড আবেদন করে গত বৃহস্পতিবার আদালতে পাঠানো হয়। আদালত তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। রোববার (৩০ মে) তাদের রিমান্ড শুনানির দিন রয়েছে।

epsoon tv 1

বিনিউজবিডি.ডটকম

আধুনিক বাংলাদেশ গড়ার দৃঢ় প্রত্যয়ে সংবাদ পরিবেশনে দৃঢ় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ নিয়ে “বিনিউজবিডি.ডটকম” বাংলাদেশের প্রতিটি বিভাগ, জেলা, উপজেলা, গ্রামে-গঞ্জে ঘটে যাওয়া দৈনন্দিন ঘটনাবলী যা মানুষের দৃষ্টি ও উপলব্ধিতে নাড়া দেয় এরূপ ঘটনা যেমন, শিক্ষা,স্বাস্থ্য, পরিবেশ, সামাজিক উন্নয়ন, অপরাধ, দুর্ঘটনা ও অন্যান্য যে কোন আলোচিত বিষয়ের দৃষ্টি নন্দন তথ্য চিত্রসহ সংবাদ পাঠিয়ে সাংবাদিক হিসেবে নিজেকে আত্ম প্রকাশ করুন।

প্রতি মুহুর্তের খবর মুহুর্তেই পাঠকের মাঝে পৌছে দেয়ার লক্ষ্য কাজ করে যাচ্ছে একঝাঁক সাহসী তরুণ সংবাদ কর্মী। এরই ধারাবাহিকতায় স্বল্প সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ সহ দেশের বাহিরে বিভিন্ন দেশে সংবাদদাতা নিয়োগ দেয়া হচ্ছে।

বিদেশের মাটিতে অবস্থানরত লেখা-লেখিতে আগ্রহী যে কোনো বাংলাদেশীও প্রবাসী নাগরিক “বিনিউজবিডি.ডটকম” এর সংবাদদাতা/প্রতিনিধি হিসেবে আবেদন করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *