সাক্ষীদের তথ্যে অভিযোগ প্রমাণের চেষ্টায় পিবিআই – bnewsbd.com

অপরাধ

নিজস্ব প্রতিনিধি, বিনিউজবিডি.ডটকম :

ভোরের ডাক ডেস্ক : চট্টগ্রামে মিতু হত্যার মাস্টারমাইন্ড মুসা নিখোঁজ থাকায় রহস্য উদঘাটনে অন্যান্য তথ্য উপাত্তের ওপর নির্ভর করে এগুচ্ছে পুলিশ।

সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের পরিকল্পনাতেই স্ত্রীকে হত্যা তদন্তে এখনও প্রমাণিত না হওয়ায় সাক্ষীদের ওপর নির্ভর করেই অভিযোগ প্রমাণের চেষ্টা পিবিআইয়ের। তবে এ মামলার তদন্ত শেষ কবে হবে, কখনই বা আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করা যাবে, সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কিছুই বলতে পারছে না তদন্তকারী সংস্থা।

গায়ত্রী অমর সিং নামে ভারতীয় এক নাগরিকের সাথে পরকীয়ার জেরেই বাবুল আক্তার পরিকল্পিতভাবে সোর্সদের দিয়ে স্ত্রী মিতুকে হত্যা করান। গ্রেপ্তারের পর হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়ার জন্য রাজিও হন। কিন্তু আদালতে গিয়ে শেষ মুহূর্তে জবানবন্দি না দিয়েই ফিরে আসেন।

চট্টগ্রাম পিবিআই পুলিশ সুপার নাইমা সুলতানা বলেন, কিছুটা সহজ হতো এখন একটু সহজ কম হলো কিন্তু কঠিন হয়ে গেল তা বলা যাবে না। কারণ আমরা তো অন্যান্য সাক্ষী দিয়ে আমরা তো হানড্রেড পারসেন্ট আইডেন্টিফাই করেছি এটা তো বাবুল আক্তারের কাজ।

এরপরই মামলার অন্যতম আসামি মুসার স্ত্রী পান্না আক্তার, বাবুলের দুই ব্যবসায়িক পার্টনারসহ চারজন সাক্ষী হিসেবে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন। জবানবন্দিতে মিতু হত্যার সাথে বাবুল জড়িত থাকার কথা জানান তারা।

মিতু হত্যা মামলার দুই আসামি ওয়াসিম ও আনোয়ার হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে দেয়া জবানবন্দিতে বলেছিলেন, টাকার বিনিময়ে মুসার নির্দেশে মিতু হত্যায় সাতজন অংশ নিয়েছিলেন। কিন্তু সে সময় তাদের জবানবন্দিতে আসেনি বাবুলের নাম। 

মুসার স্ত্রী পান্না আক্তার বলেন,১৯ বা ২০ তারিখে একটা কল আসে। আমি জানতে চাইলে বলে এটা বাবুল আক্তার স্যার। তখন আমি জানতে চাই মিতু হত্যার সঙ্গে জড়িত কিনা? বলে আমি তো করতে চাইনি আমাকে দিয়ে বাবুল আক্তার স্যার করিয়েছেন। আমি করতে বাধ্য হয়েছি।

এ প্রসঙ্গে চট্টগ্রাম পিবিআই পুলিশ সুপার নাইমা সুলতানা আরও বলেন, বাবুল আক্তার যদি কোনো সোর্সকে দিয়ে তার স্ত্রীকে পৃথিবী থেকে সরিয়ে দিতে পারে, তবে সেকি আরেকজন সোর্স দিয়ে ওই সোর্সকে কিছু করতে পারে না?

এদিকে, মিতুর বাবা হত্যা মামলার দ্রুত বিচার দাবি করলেও বলছেন, খুব সহসাই এটি হওয়ার সম্ভাবনা নেই। মিতুর বাবা বলেন,দ্রুত বিচার হোক এর চাইতেও আমার চাওয়া সত্যের বিচার হোক।

২০১৬ সালের ৫ই জুন সকালে জিইসি মোড়ে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করা হয় মিতুকে। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলা ২০২০ সালে পিবিআই’র কাছে হস্তান্তর করা হয়। পিবিআই তদন্তে এ হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারী ও নির্দেশদাতা হিসেবে নাম উঠে আসে মিতুর স্বামী বাবুল আক্তারের নাম।  

বিনিউজবিডি.ডটকম

আধুনিক বাংলাদেশ গড়ার দৃঢ় প্রত্যয়ে সংবাদ পরিবেশনে দৃঢ় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ নিয়ে “বিনিউজবিডি.ডটকম” বাংলাদেশের প্রতিটি বিভাগ, জেলা, উপজেলা, গ্রামে-গঞ্জে ঘটে যাওয়া দৈনন্দিন ঘটনাবলী যা মানুষের দৃষ্টি ও উপলব্ধিতে নাড়া দেয় এরূপ ঘটনা যেমন, শিক্ষা,স্বাস্থ্য, পরিবেশ, সামাজিক উন্নয়ন, অপরাধ, দুর্ঘটনা ও অন্যান্য যে কোন আলোচিত বিষয়ের দৃষ্টি নন্দন তথ্য চিত্রসহ সংবাদ পাঠিয়ে সাংবাদিক হিসেবে নিজেকে আত্ম প্রকাশ করুন।

প্রতি মুহুর্তের খবর মুহুর্তেই পাঠকের মাঝে পৌছে দেয়ার লক্ষ্য কাজ করে যাচ্ছে একঝাঁক সাহসী তরুণ সংবাদ কর্মী। এরই ধারাবাহিকতায় স্বল্প সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ সহ দেশের বাহিরে বিভিন্ন দেশে সংবাদদাতা নিয়োগ দেয়া হচ্ছে।

বিদেশের মাটিতে অবস্থানরত লেখা-লেখিতে আগ্রহী যে কোনো বাংলাদেশীও প্রবাসী নাগরিক “বিনিউজবিডি.ডটকম” এর সংবাদদাতা/প্রতিনিধি হিসেবে আবেদন করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *