রাজনীতির বেশে ব্যবসায় ফিরতে চান গডফাদাররা – bnewsbd.com

বিজ্ঞান প্রযুক্তি

নিজস্ব প্রতিনিধি, বিনিউজবিডি.ডটকম :

রাজনীতিই সবকিছুর রক্ষাকবচ। ক্ষমতার দাপটের পাশাপাশি রয়েছে সম্মানও। নির্বাচিত একজন জনপ্রতিনিধি যাই করুক না কেন সেটাই বৈধ। হয়রানিরও ভয় থাকে না। রাজনীতি ও নির্বাচন নিয়ে এমন ভাবনা কক্সবাজারের টেকনাফের ইয়াবা কারবারিদের। তাঁরা মনে করেন, রাজনীতিতে আসতে পারলেই তাঁদের সব সমস্যার সমাধান হবে। তাই কারাগার থেকে ফিরে এসেই রাজনৈতিক দলে ভিড়ে এবার নির্বাচন করতে চান তাঁরা।

দুই বছর আগে কক্সবাজারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের কাছে আত্মসমর্পণকারী ১০২ ইয়াবা কারবারির সবাই এখন জামিনে। সে সময় পুলিশ আত্মসমর্পণকারীদের মধ্যে ৩০ জনকে আলাদা করে ‘ইয়াবা গডফাদার’ হিসেবে আখ্যা দিয়েছিল আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। জামিনে বের হয়ে এসে এই গডফাদাররা এবার নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন।

স্বঘোষিত এই ইয়াবা কারবারিরা বলছেন, জনপ্রতিনিধি হয়ে এবার তাঁরা ‘জনসেবা’ করতে চান। সঙ্গে নিজের পেশা ও নিরাপত্তাও নিশ্চিত করতে চান। করোনা মহামারির কারণে বন্ধ থাকা টেকনাফের ৫ ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) নির্বাচন ও আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে, তাই মাঠ কাঁপাচ্ছেন চিহ্নিত এই ইয়াবা কারবারিরা।

তবে সাধারণ ভোটাররা ইয়াবা কারবারিদের রাজনীতিতে নামা নিয়ে শঙ্কিত। ক্ষমতা দেখিয়ে তাঁরা আগের মতো ইয়াবার রাজত্ব কায়েম করবেন–এমন আশঙ্কা সবার। এঁরা যেন মনোনয়ন না পান, তা দেখার জন্য সরকারের কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন তাঁরা।

পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) আনোয়ার হোসেন আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘আমি নিজেও মনে করি, ইয়াবা ব্যবসায়ীরা জনপ্রতিনিধি হলে আবারও ব্যবসায় জড়ানোর আশঙ্কা আছে। পুলিশের কাছে তাদের বিষয়ে এমনই তথ্যও আছে। তবে সবাইকে নজরদারিতে রাখা হয়েছে।’
টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল বশরের দাবি, আত্মসমর্পণকারী ইয়াবা কারবারিদের জামিনের পেছনে তদবির কাজ করেছে। জামিনে বের হয়ে এসে তাঁরা এখন আরও ভয়ানক হয়ে উঠেছেন। কারাগারে বসেই তাঁরা ইয়াবা সিন্ডিকেট চালিয়েছেন। এখন বের হয়ে এসে গডফাদাররা একটা সাইনবোর্ড খুঁজছেন। যেটা সামনে রেখে ব্যবসাটা বৈধ করা যায়। তাই উপজেলার মেয়র, কাউন্সিলর থেকে শুরু করে ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বার হওয়ার জন্য উঠেপড়ে লেগেছেন। 

নির্বাচনে অংশ দিচ্ছেন যাঁরা
জানা যায়, আত্মসমর্পণের আগেই বেশ কয়েকজন মাদক কারবারি স্থানীয় রাজনীতির সঙ্গে জড়িয়ে ছিলেন।

১০২ জনের মধ্যে টেকনাফ পৌরসভা ও ছয়টি ইউনিয়নের অন্তত ২৭ জন নির্বাচিত প্রতিনিধি ছিলেন।

সূত্র বলছে, আত্মসমর্পণ করা মাদক কারবারিদের একজন আব্দুর শুক্কুর, যিনি পুলিশের তালিকায় এক নম্বর ইয়াবা গডফাদার। জামিনে বের হয়ে তিনি এখন টেকনাফ পৌরসভার মেয়র নির্বাচন করতে চান। তিনি মেয়র প্রার্থী হিসেবে উপজেলা আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী। তিনি আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘আমি আগে ব্যবসা (ইয়াবা) করতাম। এখন আত্মসমর্পণ করে জামিনে রয়েছি। জনগণ চায় আমি মেয়র পদে নির্বাচন করি। তা ছাড়া রাজনীতিতে থাকা ভালো। অন্যায়ভাবে কেউ হয়রানি করতে পারে না। সম্মান আর ক্ষমতাও আছে।’ 

শুধু শুক্কুর নন টেকনাফ পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে অন্তত ২০ জন চিহ্নিত ইয়াবা কারবারি প্রচার চালাচ্ছেন। কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচন করতে চান আরেক ইয়াবা গডফাদার মোহাম্মদ জোবায়ের। তিনি বলেন, ‘আমি আর মাদকের সঙ্গে নেই। এখন একটু জনসেবা করতে চাই। তা ছাড়া টেকনাফের মতো জায়গায় টিকে থাকতে হলে আপনাকে কোনো না–কোনো দিক দিয়ে ক্ষমতাবান হতে হবে। এটার বিকল্প নাই।’

টেকনাফ সদর ইউপির চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে যাঁরা প্রচার শুরু করেছেন সেই পাঁচজনের মধ্যে তিনজনই চিহ্নিত ইয়াবা কারবারি। যাঁর মধ্যে বর্তমান চেয়ারম্যান শাহজাহান মিয়াও আছেন। যাঁর বিরুদ্ধে ইয়াবা ও অস্ত্র আইনে কয়েকটি মামলা রয়েছে। তাঁর দাবি, প্রতিপক্ষের ষড়যন্ত্রের শিকার তিনি। তিনি ইয়াবা গডফাদার ছিলেন না। তাঁর সঙ্গে ইয়াবা কারবারিদের পরিচয় ছিল, তাতেই পুলিশ তাঁকে সন্দেহ করে।

শাহপরীর দ্বীপ ইউপির সদস্য রেজাউল করিম রেজা। যিনি আবার ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি। আত্মসমর্পণ করে ছয় মাস আগে জামিনে কারাগার থেকে বের হয়েছেন। তিনি আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘আমি স্থানীয় দলীয় ষড়যন্ত্রের শিকার। ইয়াবা ব্যবসায়ীদের তালিকায় আমাকে বলা হচ্ছে গডফাদার। কিন্তু আসলে আমার সঙ্গে এ ব্যবসার কোনো সম্পর্ক নেই। জীবন বাঁচাতে আত্মসমর্পণ করেছি। জনগণ জানে, আমি কেমন? তাই আমি আবার ভোট করব।’

তথ্য বলছে, এ ছাড়া সাবরাং ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ ১৪ জন, বাহারছড়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ ৫ জন, হ্নীলা ইউনিয়নে চেয়ারম্যানে প্রার্থীসহ ১১ জন, হোয়াইক্যং ইউনিয়নে ৭ জন এবং সেন্ট মার্টিন ইউনিয়নে ৩ জন প্রার্থী রয়েছেন। যাঁরা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত ইয়াবা কারবারি ও কথিত গডফাদার।

কক্সবাজার বাঁচাও আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক আইনজীবী আয়াছুর রহমান বলেন, আত্মসমর্পণকারী ইয়াবা কারবারিরা স্বঘোষিত মাদক কারবারি। যাঁরা আদালতের মাধ্যমে জামিন পেয়ে এলাকায় ফিরেছেন। এঁরা যদি জনপ্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচিত হয়ে আসেন, মাদক আর কোনো দিন রোধ হবে না। 

ইয়াবা কারবারিরা জামিন পেলেন যেভাবে
 ২০১৯ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি ইয়াবা কারবারিরা আত্মসমর্পণের সময় ৩ লাখ ইয়াবা বড়ি এবং ৩০টি আগ্নেয়াস্ত্র তুলে দেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে ৷ তাঁদের প্রত্যেককে অস্ত্র ও মাদক আইনের দুইটি মামলায় আসামি করা হয় ৷ ১০২ জনের মধ্যে ১ জন কারাগারে মারা যান ৷ কারাগারে যাওয়ার সাত মাস পর প্রথম ২০১৯ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর হাইকোর্ট থেকে ৫ জন জামিন পান ৷ এরপর ৫ অক্টোবর কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালত থেকে জামিন পান ৭ জন ৷ একই আদালত থেকে ৩ নভেম্বর জামিন পান ১৫ জন ৷ ধাপে ধাপে ১০১ জনই জামিনে বেরিয়ে এসেছেন।

কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পিপি ফরিদুর আলম চৌধুরী আজকের পত্রিকাকে বলেন, আত্মসমর্পণকারী ইয়াবা কারবারিরা সবাই জামিন পেয়েছেন। তাঁরা যেহেতু একটা শর্তে আত্মসমর্পণ করেছিলেন, তাই তাঁদের মামলার এজাহার ও অভিযোগপত্র সেভাবেই দেওয়া হয়েছিল। এ জন্য এত দ্রুত অস্ত্র ও মাদক মামলায় জামিনে বেরিয়েছেন।

পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘আত্মসমর্পণে কিছু শর্তের মাধ্যমে তাঁরা আইনের আওতায় এসেছেন। প্রক্রিয়া অনুসারেই তাঁদের জামিন হয়েছে। তবে মামলা এখনো বিচারাধীন। আমাদের নজরদারিতে আছেন তাঁরা।’ 

আবারও ফিরছেন মাদক ব্যবসায় 
গত ২২ মে রাতে টেকনাফ হ্নীলা ইউপির রঙ্গিখালী এলাকা থেকে ১০ হাজার ইয়াবা বড়িসহ চার মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন আত্মসমর্পণকারী ইয়াবা গডফাদার জামাল হোসেনের ছেলে শাহ আলম। তিনিও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আত্মসমর্পণ করেছিলেন। জামিনে বেরিয়ে এসে আবার ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েছেন।

টেকনাফ থানার ওসি হাফিজুর রহমান আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘আত্মসমর্পণ করা ইয়াবা কারবারিরা আবার ব্যবসায় ফিরেছেন। যে কারণে জামিনে থাকা কারবারিদের ওপর বিশেষ নজর রাখছে পুলিশ।’ 

বাকি গডফাদারদের গ্রেপ্তারে তৎপরতা নেই
মাদক ব্যবসায় জড়িত পুলিশের তালিকায় থাকায় আরও হাজারখানেক মানুষকে গ্রেপ্তার করার ক্ষেত্রে পুলিশের বিশেষ কোনো তৎপরতা নেই। দুই দফায় ১২৩ কারবারি আত্মসমর্পণ করলেও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত ৪০ জন গডফাদার এখনো আত্মসমর্পণ করেননি। গত দুই বছরে তাঁরা গ্রেপ্তারও হননি। 
চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেপ্তারে পুলিশের অনাগ্রহের কথা জানিয়ে কক্সবাজার চেম্বারের সভাপতি আবু মোর্শেদ চৌধুরী বলেন, তালিকায় থাকা সত্ত্বেও তাঁরা লোকালয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন কিন্তু পুলিশ তাঁদের ধরছে না। মাদক কারবারিদের গ্রেপ্তারের বিষয়ে প্রশাসনের আগ্রহ কমে গেছে। যে কারণে বর্তমানে ব্যবসা বেড়ে গেছে। তাঁর দাবি, কৌশলে ইয়াবা ব্যবসার হোতাদের টিকিয়ে রাখা হচ্ছে।

সূত্র বলছে, গডফাদারের তালিকায় থাকা ৪০ জন পালিয়ে থাকলেও এখন সবাই এলাকায় ফিরেছেন। নাজিরপাড়ার ভুট্টো, মৌলভীপাড়ার এশরাম, আব্দুর রহমান, রেঙ্গুর বিলের মীর কাসিমের মতো কারবারিরা পুলিশের সামনেই থাকেন। নিয়মিত যাতায়াত আছে থানাতেও।

পুলিশের তালিকায় থাকার পরও গ্রেপ্তার হচ্ছে না সাবেক সাংসদ আব্দুর রহমান বদির ভাই টেকনাফ পৌরসভার প্যানেল মেয়র মুজিবুর মৌলভি, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান জাফর আহমদ, সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মৌলভি রফিক উদ্দীন, তাঁর ভাই ইউপি চেয়ারম্যান মৌলভি আজিজ উদ্দীন, রহমান, কাউন্সিলর শাহ আলম, রেজাউল করিম মানিক, মোহাম্মদ হোসেন, টেকনাফ সদর ইউনিয়নের মেম্বার মোহাম্মদ আবদুল্লাহ, আজম উল্লাহ, মোহাম্মদ আলম, সাবরাং ইউনিয়নের মাহমুদুর রহমান, হোয়াইক্যং ইউনিয়নের রাকিব আহমেদেরা। 

মাদক কারবারিদের কথা ভুলে গেছে সিআইডি ও দুদক 
দুই বছর আগে কক্সবাজারের তালিকাভুক্ত ইয়াবা কারবারিদের স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের অনুসন্ধানে নেমেছিল দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ও সিআইডি। প্রাথমিক অনুসন্ধানে সংস্থা দুইটির তদন্তে, কারবারিদের অনেকের শতকোটি টাকার মালিক হওয়ার তথ্য পেয়েছিল তারা। কিন্তু শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত সিআইডি মাত্র ১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছিল। কিন্তু জব্দ করেনি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট। এমনকি পরে আর এগোয়নি এসব মামলার তদন্তও। 

বিনিউজবিডি.ডটকম

আধুনিক বাংলাদেশ গড়ার দৃঢ় প্রত্যয়ে সংবাদ পরিবেশনে দৃঢ় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ নিয়ে “বিনিউজবিডি.ডটকম” বাংলাদেশের প্রতিটি বিভাগ, জেলা, উপজেলা, গ্রামে-গঞ্জে ঘটে যাওয়া দৈনন্দিন ঘটনাবলী যা মানুষের দৃষ্টি ও উপলব্ধিতে নাড়া দেয় এরূপ ঘটনা যেমন, শিক্ষা,স্বাস্থ্য, পরিবেশ, সামাজিক উন্নয়ন, অপরাধ, দুর্ঘটনা ও অন্যান্য যে কোন আলোচিত বিষয়ের দৃষ্টি নন্দন তথ্য চিত্রসহ সংবাদ পাঠিয়ে সাংবাদিক হিসেবে নিজেকে আত্ম প্রকাশ করুন।

প্রতি মুহুর্তের খবর মুহুর্তেই পাঠকের মাঝে পৌছে দেয়ার লক্ষ্য কাজ করে যাচ্ছে একঝাঁক সাহসী তরুণ সংবাদ কর্মী। এরই ধারাবাহিকতায় স্বল্প সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ সহ দেশের বাহিরে বিভিন্ন দেশে সংবাদদাতা নিয়োগ দেয়া হচ্ছে।

বিদেশের মাটিতে অবস্থানরত লেখা-লেখিতে আগ্রহী যে কোনো বাংলাদেশীও প্রবাসী নাগরিক “বিনিউজবিডি.ডটকম” এর সংবাদদাতা/প্রতিনিধি হিসেবে আবেদন করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *