সিদ্ধান্ত ছাড়াই শিক্ষা ক্যাডারের পদোন্নতির সভা মূলতবি – bnewsbd.com

শিক্ষা-সংস্কৃতি

নিজস্ব প্রতিনিধি, বিনিউজবিডি.ডটকম :

স্টাফ রিপোর্টার : মামলা সংক্রান্ত জটিলতার কারণে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারের সহযোগী অধ্যাপক পদে পদোন্নতির জন্য বিভাগীয় পদোন্নতি কমিটির (ডিপিসি) সভা সিদ্ধান্ত ছাড়াই মূলতবি ঘোষণা করা হয়েছে। 

পদোন্নতি কমিটির সভাপতি ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেনের সভাপতিত্বে রোববার সকাল ১১টায় শুরু হয় সভা। বেলা ৩টা পর্যন্ত প্রায় চার ঘন্টাব্যাপী ডিপিসির সভা চললেও পদোন্নতি তালিকায় নানা অসঙ্গতি, আত্তীকৃত শিক্ষকদের মামলা সংক্রান্ত ঝামেলা এবং ভুল-ভ্রান্তি থাকায় চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে না এসে সভাটি মূলতবি করা হয়েছে বলে সভার একাধিক সূত্র জানিয়েছে। তবে মন্ত্রণালয়ের আরেকটি বিশ্বস্ত সূত্র বলছে, উচ্চ পর্যায়ের সমন্বয়হীনতার কারণে সভায় কোনো সিন্ধান্তে আসা যায়নি। এতে পদোন্নতির তালিকায় থাকা প্রায় তিন হাজার শিক্ষকের সহযোগী অধ্যাপক হওয়ার অপেক্ষা আরো দীর্ঘ হলো।

সভা শেষে জানতে চাইলে পদোন্নতি কমিটির সভাপতি ও মাধ্যমিক উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন ভোরের ডাককে বলেন, যোগ্য সবাইকে আমরা পদোন্নতি দেয়ার চিন্তা নিয়ে এগুচ্ছি। আজকের সভায় (গতকাল) আমরা চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারিনি। ঈদের পর আরেকটি মিটিং করে চূড়ান্ত করা হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, শিক্ষা ক্যাডারের কিছু কিছু সাবজেক্ট রয়েছে, যেগুলোতে উপরের পদগুলো শূন্য বেশি থাকে। তখন দেখা যায় নিচের বা অপেক্ষাকৃত জুনিয়র শিক্ষকরা পদোন্নতির সুযোগ পেয়ে যান। যা অন্য সাবজেক্টের শিক্ষকের সঙ্গে অমিল তৈরি হয়। তবে এটি একটি স্বাভাবিক নিয়ম। এখানে কারো হাত নেই।

সভা সূত্রে জানা গেছে, সহযোগী অধ্যাপক পদে পদোন্নতিযোগ্য প্রায় তিন হাজার ৩০৩ কর্মকর্তার মধ্যে সর্বমোট ৫০ শতাংশ পদোন্নতির দেয়ার ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে। 

সভাসূত্র আরও জানায়, সরকারি টিটার্স ট্রেনিং কলেজ ও জাতীয়করণকৃত ১৮ মহিলা কলেজের পদোন্নতিযোগ্য আত্তীকৃত শিক্ষকদের নিয়ে মামলা সংক্রান্ত জটিলতা থাকায় মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকে সেগুলো যাচাইয়ের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এগুলো ঠিকঠাক করে পরবর্তীতে মিটিংয়ে উপস্থাপন করার সুপারিশ করা হয়েছে। একইসঙ্গে গত বছর অধ্যাপক পদে পদোন্নতির বাইরে থাকা কিছু কর্মকর্তাকেও অধ্যাপক পদে পদোন্নতি দেয়ার ব্যাপারে গতকালের সভায় আলোচনা হয়েছে। ডিপিসির সভায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (কলেজ) ফজলুর রহমান, মাউশি মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক এবং অর্থ ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা অংশ নেন।

জানা যায়, দেশের অন্যান্য ক্যাডারে ব্যাচভিত্তিক পদোন্নতি দেয়া হলেও শিক্ষা ক্যাডারে বিষয়ভিত্তিক পদোন্নতি হয়ে থাকে। যে কারণে অনেক জুনিয়র কর্মকতারা অন্যান্য সাবজেক্টের অনেক সিনিয়রদের চেয়ে দ্রুত পদোন্নতি পেয়ে যায়। এতে কর্মক্ষেত্রে মানসিক অস্বস্তিতে ভোগেন অন্যান্য কর্মকর্তারা। তবে এবার ব্যাচভিত্তিক পদোন্নতির আশা করছেন শিক্ষা ক্যাডারের অধিকাংশরাই। তবে মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, ব্যাচভিত্তিক পদোন্নতি দিতে হলে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর আমাদের কাছে লিখিত প্রস্তাব দিতে হবে। তারা এমন কোনো আবেদন করেনি। আর ব্যাচভিত্তিক পদোন্নতির জন্য পিএসসির (পাবলিক সার্ভিস কমিশন) সম্মিলিত গ্রেডেশন তালিকাও জমা দিতে হবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও মাউশি সূত্র জানায়, অন্য ক্যাডারে ব্যাচভিত্তিক পদোন্নতি দেয়া হলেও শিক্ষা ক্যাডারে ‘বিষয়ভিত্তিক’ পদোন্নতি দেয়া হয়। বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস জ্যেষ্ঠতা বিধিমালা ১৯৮৩ অনুসারে, সহকারী অধ্যাপক থেকে সহযোগী অধ্যাপক পদে পদোন্নতিযোগ্য সহযোগী অধ্যাপকদের তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। সহযোগী অধ্যাপকদের বিষয়ভিত্তিক শুন্য পদের বিপরীতে পদোন্নতির জন্য সরকারি কলেজ ও সরকারি শিক্ষক প্রশিক্ষণ কলেজের সহকারী অধ্যাপকের তিন হাজার ৩০৩ জন কর্মকর্তার তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। এরমধ্যে তিন হাজার ২৫৪ জন পদোন্নতিযোগ্য। পদোন্নতি দিতে আদালতের কোন বিধি নিষেধ নেই। সহকারী অধ্যাপক থেকে সহযোগী অধ্যাপক পদে পদোন্নতিযোগ্য শিক্ষকের মধ্যে ৯৫ জন বেসরকারি থেকে আত্তীকৃত। আর বাকিরা সরসরি বিসিএসের মাধ্যমে নিয়োগপ্রাপ্ত। ২২ থেকে ২৬তম বিসিএস পর্যন্ত শিক্ষা ক্যাডারের সহকারী অধ্যাপক সবাইকে পদোন্নতির প্রস্তাব করেছে মাউশি। ২৬তম ব্যাচ পর্যন্ত সবাইকে পদোন্নতি দিতে সরকারকে অতিরিক্ত অর্থ গুনতে হবে না। জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ অনুযায়ী প্রতিবছর ৫ শতাংশ ইনিক্রিমেন্ট পেয়ে বর্তমানে পঞ্চম গ্রেডে বেতন পাচ্ছেন তারা। এই সংখ্যা প্রায় আড়াই হাজারের মতো। 

সর্বশেষ ২০১৮ সালে সহকারী অধ্যাপক থেকে সহযোগী অধ্যাপক পদে ৬৩৪ জনকে পদোন্নতি দেয়া হয়েছিল। এরপর এ পদে তিন বছর ধরে কোন পদোন্নতি হয়নি। তবে গত বছর অধ্যাপক পদে পদোন্নতি দেয়া হয়েছিল।

বিনিউজবিডি.ডটকম

আধুনিক বাংলাদেশ গড়ার দৃঢ় প্রত্যয়ে সংবাদ পরিবেশনে দৃঢ় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ নিয়ে “বিনিউজবিডি.ডটকম” বাংলাদেশের প্রতিটি বিভাগ, জেলা, উপজেলা, গ্রামে-গঞ্জে ঘটে যাওয়া দৈনন্দিন ঘটনাবলী যা মানুষের দৃষ্টি ও উপলব্ধিতে নাড়া দেয় এরূপ ঘটনা যেমন, শিক্ষা,স্বাস্থ্য, পরিবেশ, সামাজিক উন্নয়ন, অপরাধ, দুর্ঘটনা ও অন্যান্য যে কোন আলোচিত বিষয়ের দৃষ্টি নন্দন তথ্য চিত্রসহ সংবাদ পাঠিয়ে সাংবাদিক হিসেবে নিজেকে আত্ম প্রকাশ করুন।

প্রতি মুহুর্তের খবর মুহুর্তেই পাঠকের মাঝে পৌছে দেয়ার লক্ষ্য কাজ করে যাচ্ছে একঝাঁক সাহসী তরুণ সংবাদ কর্মী। এরই ধারাবাহিকতায় স্বল্প সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ সহ দেশের বাহিরে বিভিন্ন দেশে সংবাদদাতা নিয়োগ দেয়া হচ্ছে।

বিদেশের মাটিতে অবস্থানরত লেখা-লেখিতে আগ্রহী যে কোনো বাংলাদেশীও প্রবাসী নাগরিক “বিনিউজবিডি.ডটকম” এর সংবাদদাতা/প্রতিনিধি হিসেবে আবেদন করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *