ভারতে যৌতুক আছে ৫০ বছর আগের মতোই, তবে পরিমান বাড়েনি – bnewsbd.com

বিচিত্র বিশ্ব

নিজস্ব প্রতিনিধি, বিনিউজবিডি.ডটকম :

ভারতে যৌতুক প্রথা একটি অন্যতম সামাজিক সমস্যা। আইন করে এই প্রথা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তবে যৌতুক নেওয়ার প্রবণতা খুব একটা কমেনি। বরং কিছু এলাকায় নির্দিষ্ট আর্থ–সামাজিক অবস্থা ও সংস্কৃতির মানুষের মধ্যে যৌতুক নেওয়ার প্রবণতা বেড়েছে। তবে প্রায় অর্ধশতকের মধ্যেও যৌতুকের পরিমানে খুব একটা হেরফের হয়নি। যদিও এসময়ের মধ্যে ভারতে অনেক কিছু বদলে গেছে। অর্থনীতির আকার বেড়েছে। মাথাপিছু গড় আয় এবং জীবনযাত্রার গড় ব্যয় দুটোই বেড়েছে। সামান্য মূল্যস্ফীতিও এর সঙ্গে যোগ হয়েছে। কিন্তু যৌতুকের গড় পরিমান প্রায় অপরিবর্তিত রয়েছে।

বিশ্বব্যাংকের একটি গবেষণায় এমন পর্যবেক্ষণ উঠে এসেছে। ১৯৬০ থেকে ২০০৮ সালের মধ্যে ভারতের গ্রামাঞ্চলে অনুষ্ঠিত ৪০ হাজার বিয়ের তথ্য বিশ্লেষণ করেছে বিশ্ব ব্যাংক। গবেষণায় দেখা গেছে, ১৯৬১ সাল থেকে ভারতে যৌতুক বেআইনি হলেও দেশটিতে মধ্যে প্রায় ৯৫ শতাংশ বিয়েতেই যৌতুক দেওয়া-নেওয়া হয়েছে।

যৌতুক দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে কয়েকশ বছরের পুরোনো প্রথা। কনেপক্ষ যৌতুক হিসেবে বর পক্ষকে নগদ টাকা, কাপড়, গয়না ইত্যাদি দিয়ে থাকে। যৌতুকের কারণে নারীরা স্বামীর ঘরে নির্যাতনের শিকার হন। এ নিয়ে এমন কি খুনও হতে হয় তাঁদের। 

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গবেষণায় ১৭টি রাজ্যের যৌতুক সংক্রান্ত উপাত্ত বিশ্লেষণ করেছেন গবেষকেরা। এসব রাজ্যে ভারতের প্রায় ৯৬ শতাংশ জনগোষ্ঠীর বাস। গবেষণায় মূলত গ্রামের বিয়েগুলোতে আলোকপাত করা হয়েছে। 

গবেষকেরা বিয়ের সময় বরপক্ষ কনেপক্ষকে দেওয়া উপহারের সঙ্গে কনেপক্ষ বরপক্ষকে দেওয়া উপহারের পার্থক্যকে যৌতুক হিসেবে বিবেচনা করেছেন। স্বাভাবিকভাবেই দেখা গেছে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে কনেপক্ষের খরচের পরিমাণ বরপক্ষের তুলনায় অনেক বেশি। 
 
গবেষকেরা দেখেছেন যে,১৯৭৫ সালের আগে এবং ২০০০ সালের পরে ভারতে কিছু মূল্যস্ফীতি হলেও দেশটিতে যৌতুকের গড় পরিমাণ প্রায় অপরিবর্তিত রয়েছে। গবেষণায় দেখা গেছে, ভারতের একটি বরের পরিবার কনেপক্ষকে গড়ে প্রায় ৫ হাজার রুপি সমমূল্যের উপহার দেয়। কিন্তু কনেপক্ষ বরপক্ষকে গড়ে প্রায় ৩২ হাজার রুপি সমমূল্যের উপহার দেয়। এর মানে দাঁড়াচ্ছে, ভারতে একটি কনে পরিবারকে প্রায় ২৭ হাজার রুপি যৌতুক দিতে হয়। 

যৌতুকের ক্ষতিকর প্রভাব কনেপক্ষের পারিবারিক সঞ্চয় এবং আয়ের ওপরও পড়ে। ২০০৭ সালের হিসাবে, ভারতের গ্রামাঞ্চলে যৌতুকের গড় পরিমাণ পরিবারগুলোর বার্ষিক আয়ের প্রায় ১৪ শতাংশের সমান। দক্ষিণ এশিয়ার অনেকে দেশেই দেখা যায়, মেয়ের বিয়ে দেওয়ার জন্যই পরিবার বহুদিন ধরে অর্থ সঞ্চয় করে। অর্থাৎ পরিবারের সঞ্চয়ের একটি বড় অংশই কন্যার বিয়ে পেছনে ব্যয় হয় বলে ধরে নেওয়া যায়। 

বিশ্বব্যাংকের গবেষক দলের অর্থনীতিবিদ ড. অনুকৃতি বলেন, মানুষের আয়ের হিসাবে যৌতুকের পরিমাণ হ্রাস পেয়েছে। কারণ ভারতে গড়ে গ্রামীণ আয় বেড়েছে। তবে এটি গড়ে হিসাব করা। কিন্তু যৌতুক কীভাবে পরিবারের আয়ে প্রভাব ফেলে তা দেখতে হলে আমাদের আরও বেশি পরিবারের আয়–ব্যয়ের হিসাব দরকার। দুর্ভাগ্যবশত আমাদের কাছে সেটি নেই। 

ভারতে বিয়ে প্রথার চিত্র:

  • ভারতে বেশির ভাগ পুরুষই এক সঙ্গে একটির বেশি স্ত্রী রাখেন না।
  • দেশটিতে প্রায় ১ শতাংশের কম বিয়ে বিচ্ছেদ হয়।
  • কনে এবং বর নির্বাচনের ক্ষেত্রে বাবা ও মা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন।
  • ৯০ শতাংশের বেশি কনে বিয়ের পর স্বামীর বাবা ও মায়ের সঙ্গে থাকেন।
  • ৮৫ শতাংশের বেশি নারীর নিজ গ্রামের বাইরে বিয়ে হয়।
  • ৭৮ দশমিক ৩ শতাংশ বিয়ে একই জেলার মধ্যে হয়।

২০০৮ সালের পর ভারতে ব্যাপক পরিবর্তন হয়েছে। কিন্তু গবেষকেরা বলছেন, যৌতুক দেওয়ার পরিমাণে আজও খুব একটা পরিবর্তন হয়নি। গবেষণায় আরও দেখা গেছে, ভারতের সব প্রধান ধর্মের অনুসারীদের মধ্যেই যৌতুক প্রথা রয়েছে। তবে এর মধ্যে শিখ এবং খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বী মানুষ সবচেয়ে বেশি যৌতুক দেয়। এরপরই রয়েছে হিন্দু এবং মুসলিমদের অবস্থান। 

গবেষণায় দেখা যায়, ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে যৌতুকের পরিমাণে পার্থক্য আছে। দেশটির গড়ে সবচেয়ে বেশি যৌতুক দেওয়া হয় কেরালা রাজ্যে। এ ছাড়া হরিয়ানা, পাঞ্জাব, গুজরাটেও বেশি পরিমাণে যৌতুক দেওয়া হয়। এ ছাড়া ওডিশা, পশ্চিমবঙ্গ, তামিলনাড়ু এবং মহারাষ্ট্রে যৌতুকের পরিমাণ কমেছে। 

ড. অনুকৃতি বলেন, এই পার্থক্যগুলো কেন, তা নিয়ে আমাদের কাছে নির্দিষ্ট ব্যাখ্যা নেই। আমরা আশা করছি, আরও গবেষণা করলে এই উত্তরগুলো পাব। 

গত জানুয়ারিতে প্রকাশিত একটি গবেষণায় অর্থনীতিবিদ গৌরব চিপ্লুঙ্কার এবং জেফরি ওয়েবার ৭৪ হাজারের বেশি বিয়ের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখিয়েছেন যে কীভাবে যৌতুক প্রথা বিবর্তিত হয়েছে। ওই গবেষণায় দেখা যায়, ১৯৩০ থেকে ১৯৭৫ সালের মধ্যে ভারতে যৌতুকের পরিমাণ দ্বিগুণ হয়েছিল। কিন্তু ১৯৭ সালের পর যৌতুকের পরিমাণ কমতে থাকে। 

ওই গবেষণায় বলা হয়েছে, ১৯৫০ সাল থেকে ১৯৯৯ পর্যন্ত ভারতে মোট যৌতুকের পরিমাণ ছিল ২৫ হাজার কোটি টাকা। 

বিনিউজবিডি.ডটকম

আধুনিক বাংলাদেশ গড়ার দৃঢ় প্রত্যয়ে সংবাদ পরিবেশনে দৃঢ় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ নিয়ে “বিনিউজবিডি.ডটকম” বাংলাদেশের প্রতিটি বিভাগ, জেলা, উপজেলা, গ্রামে-গঞ্জে ঘটে যাওয়া দৈনন্দিন ঘটনাবলী যা মানুষের দৃষ্টি ও উপলব্ধিতে নাড়া দেয় এরূপ ঘটনা যেমন, শিক্ষা,স্বাস্থ্য, পরিবেশ, সামাজিক উন্নয়ন, অপরাধ, দুর্ঘটনা ও অন্যান্য যে কোন আলোচিত বিষয়ের দৃষ্টি নন্দন তথ্য চিত্রসহ সংবাদ পাঠিয়ে সাংবাদিক হিসেবে নিজেকে আত্ম প্রকাশ করুন।

প্রতি মুহুর্তের খবর মুহুর্তেই পাঠকের মাঝে পৌছে দেয়ার লক্ষ্য কাজ করে যাচ্ছে একঝাঁক সাহসী তরুণ সংবাদ কর্মী। এরই ধারাবাহিকতায় স্বল্প সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ সহ দেশের বাহিরে বিভিন্ন দেশে সংবাদদাতা নিয়োগ দেয়া হচ্ছে।

বিদেশের মাটিতে অবস্থানরত লেখা-লেখিতে আগ্রহী যে কোনো বাংলাদেশীও প্রবাসী নাগরিক “বিনিউজবিডি.ডটকম” এর সংবাদদাতা/প্রতিনিধি হিসেবে আবেদন করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *