লাতিন ফুটবল যেভাবে মার খাচ্ছে ইউরোপের কাছে – bnewsbd.com

স্বাস্থ্য-চিকিৎসা

নিজস্ব প্রতিনিধি, বিনিউজবিডি.ডটকম :

শেষের গান শুনছে ইউরো ২০২০ ও কোপা আমেরিকা ২০২১। ১১ জুলাই দুই মহাদেশে ভিন্ন দুটি ফাইনালে নামবে চার দল। মারাকানায় ফুটবলের চিরন্তন এক দ্বৈরথে মাঠে নামবে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা। একই রাতে ওয়েম্বলিতে ইউরোপ শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে মুখোমুখি দুই পরাশক্তি ইতালি ও ইংল্যান্ড।

দুই মহাদেশীয় এই ফুটবল আয়োজনের পার্থক্যটা অন্যবারের তুলনায় এবার যেন বেশি চোখে ধরা পড়ছে। গুণে–মানে যেমন যোজন যোজন পার্থক্য। দর্শকদের আকর্ষণ বিবেচনাতেও ব্যবধানটা চোখে পড়ার মতো। এই দুই আয়োজনে পার্থক্যের ধরনটা মূলত দুই রকম। একটা খেলার মাঠে, অন্যটা মাঠের বাইরে।

এবার কোপা আমেরিকা আয়োজন করার কথা ছিল কলম্বিয়া ও আর্জেন্টিনায়। রাজনৈতিক সহিংসতায় কলম্বিয়া বাদ পড়ে আগেই। করোনা মহামারিতে আর্জেন্টিনাও ছিটকে পড়ে। হঠাৎ আয়োজনের দায়িত্ব পড়ে ব্রাজিলের কাঁধে। একরকম প্রস্তুতি ছাড়াই টুর্নামেন্ট চলে যায় নেইমারদের দেশে। অপ্রস্তুত সেই আয়োজনের দুর্বলতা বেরিয়ে আসে দ্রুতই। মাঠগুলো খেলার অনুপযোগী, যার সমালোচনা করে জরিমানা গুনেছেন ব্রাজিল কোচ তিতে। ব্রাজিলের মানহীন এই মাঠের সঙ্গে ইউরোপের ব্যয়বহুল ও নান্দনিক মাঠগুলোর পার্থক্যও বিশাল।

একটা সময় ছিল যখন একটি দলকে একজন তারকা টেনে নিতেন। ম্যারাডোনা লম্বা সময় এককভাবে টেনেছেন আর্জেন্টিনাকে। কিন্তু ফুটবল ট্যাকটিকস ধীরে ধীরে বদলে গেছে। সেই বিবর্তনে একক নৈপুণ্যের ফুটবলেরও মৃত্যু ঘটে গেছে। সময়ের সঙ্গে ফুটবল ক্রমশ আরও বেশি দলগত খেলা হয়ে উঠেছে। কিন্তু লাতিন ফুটবল পুরোনো ছবি থেকে বেরিয়ে আসতে পারেনি। লিওনেল মেসি কিংবা নেইমারের ওপর তারা সব দায়িত্ব চাপিয়ে নির্বিকার থাকতে চেয়েছে! এই নির্ভরতার ফল যা হওয়ার তাই হয়েছে। প্রত্যাশার চাপে মেসি-নেইমাররা মাঝে মাঝেই নুইয়ে পড়েছেন। ফুটবলের কক্ষপথ থেকে ছিটকে গেছে লাতিন পরাশক্তিরা। যার ফল হচ্ছে ২০০২ সালের পর লাতিন দেশে আর কোনো বিশ্বকাপ না ফেরা।  

বিশ্বায়নের পৃথিবীতে সবকিছুই এখন করপোরেট পুঁজির অংশ। ফুটবলও সে জুতোয় পা ঢুকিয়েছে বহু আগে। বিশেষ করে ইউরোপিয়ান ফুটবল। ‘বসম্যান’ আইনের মতো উদ্যোগ ইউরোপিয়ান খেলোয়াড়দের মিথস্ক্রিয়ার সুযোগ অনেক বাড়িয়ে দিয়েছে। ফলে দক্ষতার দিক দিয়ে দলগুলো বৈচিত্র্য নিয়ে আসতে পারে। যেটি ইউরোপে ছোট দল–বড় দলের যে পার্থক্য অনেক কমিয়ে দিয়েছে। ক্রোয়েশিয়া বিশ্বকাপ ফাইনালে খেলে। ডেনমার্ক–ইউক্রেন–সুইজারল্যান্ডের মতো দেশগুলো কাঁপিয়ে দিতে পারে জায়ান্টদের। অন্যদিকে লাতিন দেশগুলো এখনো একমাত্রিক ফুটবল খেলে যাচ্ছে। পাওয়ার ও প্রেসিং ফুটবলের সামনে দলগুলো তাসের ঘরের মতো ধসে পড়ে।

আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে, খেলোয়াড় তৈরির পাইপলাইন। লাতিন আমেরিকার দলগুলোয় একমাত্র উরুগুয়েতে জুনিয়র ফুটবল ভালোভাবে সক্রিয়। তার পেছনে আছেন ‘এল মায়েস্ত্রো’–খ্যাত কোচ অস্কার তাবারেজ। তিনি নিজে এই স্তরগুলোয় কাজ করেন। আর্জেন্টিনা–ব্রাজিলের পাইপলাইন তৈরির কাঠামো এতটা সক্রিয় নয়। সম্ভাবনাময় প্রচুর ফুটবলার ঝরে পড়েন অকালে। এর মাঝেও যাঁরা টিকে থাকেন, তাঁদের অনেকেই ইউরোপে পাড়ি জমান। এভাবে তাঁরা নিজেদের বিশ্বসেরার কাতারে নিয়ে যাওয়ার সুযোগ পান। যাঁরা যেতে পারেন না, তাঁরা অনেক পেছনে পড়ে যান। এই ব্যবধান দিনে দিনে বেড়েই চলেছে। ‘

লাতিন ক্লাবগুলোও তাদের ঐতিহ্য হারিয়ে এখন ধুঁকতে শুরু করেছে। বড় মাছ যেভাবে ছোট মাছকে খেয়ে ফেলে, একইভাবে ইউরোপিয়ান ফুটবলের দাপটে ম্লান হয়ে যাচ্ছে বর্তমান লাতিন ফুটবল। ফেডারেশনগুলোর অনিয়ম, দুর্নীতি ও অর্থনৈতিক সমস্যা লাতিন ও ইউরোপিয়ান ফুটবলকে দুই মেরুতে ঠেলে দিয়েছে। এই ব্যবধান শিগগির কমবে—সে আশাও নেই। 

বিনিউজবিডি.ডটকম

আধুনিক বাংলাদেশ গড়ার দৃঢ় প্রত্যয়ে সংবাদ পরিবেশনে দৃঢ় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ নিয়ে “বিনিউজবিডি.ডটকম” বাংলাদেশের প্রতিটি বিভাগ, জেলা, উপজেলা, গ্রামে-গঞ্জে ঘটে যাওয়া দৈনন্দিন ঘটনাবলী যা মানুষের দৃষ্টি ও উপলব্ধিতে নাড়া দেয় এরূপ ঘটনা যেমন, শিক্ষা,স্বাস্থ্য, পরিবেশ, সামাজিক উন্নয়ন, অপরাধ, দুর্ঘটনা ও অন্যান্য যে কোন আলোচিত বিষয়ের দৃষ্টি নন্দন তথ্য চিত্রসহ সংবাদ পাঠিয়ে সাংবাদিক হিসেবে নিজেকে আত্ম প্রকাশ করুন।

প্রতি মুহুর্তের খবর মুহুর্তেই পাঠকের মাঝে পৌছে দেয়ার লক্ষ্য কাজ করে যাচ্ছে একঝাঁক সাহসী তরুণ সংবাদ কর্মী। এরই ধারাবাহিকতায় স্বল্প সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ সহ দেশের বাহিরে বিভিন্ন দেশে সংবাদদাতা নিয়োগ দেয়া হচ্ছে।

বিদেশের মাটিতে অবস্থানরত লেখা-লেখিতে আগ্রহী যে কোনো বাংলাদেশীও প্রবাসী নাগরিক “বিনিউজবিডি.ডটকম” এর সংবাদদাতা/প্রতিনিধি হিসেবে আবেদন করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *