করোনার আঘাত মৌলভীবাজার পর্যটনশিল্পে  – bnewsbd.com

বিচিত্র বিশ্ব

নিজস্ব প্রতিনিধি, বিনিউজবিডি.ডটকম :

হাওর, পাহাড়, চা বাগান অধ্যুষিত মৌলভীবাজার জেলা পর্যটকদের কাছে আকর্ষণীয় স্থান। বর্তমানে করোনার জাঁতাকলে পিষ্ট এ শিল্প। ভ্রমণ প্রেমীদের নেই সমাগম। রিসোর্ট-কটেজগুলোয় ৭০ ভাগ কর্মচারী ইতি মধ্যে ছাঁটাই করা হয়েছে। হোটেল-মোটেল ও গেস্টহাউস অনিষ্টকালের জন্য বন্ধ। দফায় দফায় বন্ধ এবং লকডাউনের ফলে পর্যটন খাতে কয়েক কোটি টাকা লোকসান হয়েছে বলে দাবি ব্যবসায়ীদের। 

সংশ্লিষ্টরা জানান, সামনে ঈদুল আজহা। এই সময়টা ছিল ব্যবসার জন্য উত্তম সময়। দেশ লকডাউনের কবলে থাকায় সব শেষ। প্রতি বছরের মধ্য নভেম্বর থেকে জুলাই-আগস্ট পর্যন্ত ভরা পর্যটন মৌসুম। এ সময় ভ্রমণপিপাসুদের সমাগমে মুখর থাকে বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্র। প্রতিদিনই বেড়াতে আসেন অন্তত ১০ হাজারেরও বেশি মানুষ। কিন্তু গত বছরের মার্চে বাংলাদেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্তের পর থেকে দেশি-বিদেশি পর্যটকদের দেখা নেই। তাই ধস নেমেছে পর্যটন খাতে। 

সরেজমিনে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান, মাধবপুর লেক, বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান স্মৃতিসৌধ, বধ্যভূমি ৭১, সাত লেয়ারের চা, বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশন, বাইক্কা বিল হাইল হাওর, মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত, হামহাম জলপ্রপাত, জলের গ্রাম অন্তেহরী, হাকালুকি হাওর সদ  বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানগুলোতে পর্যটকদের উপস্থিতি নেই। 

এ ছাড়া সদর উপজেলার মোকামবাজার এলাকায় অবস্থিত পাঁচতারকা মানের দুসাই রিসোর্ট অ্যান্ড স্পা, শ্রীমঙ্গল উপজেলার গ্র্যান্ড সুলতান টি রিসোর্ট অ্যান্ড গলফ, টি-বোর্ডের নিয়ন্ত্রণাধীন শ্রীমঙ্গল টি রিসোর্ট অ্যান্ড মিউজিয়াম, লেমন গার্ডেন রিসোর্ট, নভেম ইকো রিসোর্ট, টি হ্যাভেন রিসোর্ট, বালিশিরা রিসোর্টসহ অধিকাংশ হোটেল-মোটেল প্রায় সময়ই বন্ধ থাকতে দেখা যায়।

রিসোর্ট-কটেজ মালিকেরা জানান, হোটেল-মোটেল খোলার ব্যাপারে সরকারের প্রতিটি নির্দেশনা মেনে পুরোটা সময় বন্ধ রাখতে হচ্ছে। মাঝে মাঝে সরকারি বিধিনিষেধ শিথিল হলেও পর্যটকেরা বেড়াতে না আসায় মন্দাবস্থার উন্নতি হচ্ছে না। 

মৌলভীবাজার টি গার্ডেন। ছবি: আজকের পত্রিকা শ্রীমঙ্গলের পাঁচতারকা হোটেল গ্র্যান্ড সুলতান টি রিসোর্ট অ্যান্ড গলফের সহকারী জেনারেল ম্যানেজার আরমান খান আজকের পত্রিকাকে বলেন, `এক বছরের অধিক সময় থেকে আমরা লোকসানে আছি। সকল স্টাফকে নিয়মিত বেতন দিয়ে যাচ্ছি। করোনার দীর্ঘ মেয়াদি প্রভাবে দেশি বিদেশি পর্যটক আসছে না। বিশেষ করে বিদেশি পর্যটক না আসায় কি পরিমাণ টাকা লোকসান হচ্ছে বলে বোঝানো যাবে না।’

সংশ্লিষ্টদের আশঙ্কা, এমন পরিস্থিতি বিরাজ করলে লোকসানের অঙ্ক বাড়তে থাকবে। মৌলভীবাজারের হোটেল ও রিসোর্টের অধিকাংশই শ্রীমঙ্গল উপজেলায়। পর্যটন গন্তব্য হিসেবে এই জায়গা বেশ জনপ্রিয়। এখানে আছে প্রায় ১০০টি হোটেল-মোটেল, গেস্টহাউস, রিসোর্ট ও কটেজ। এর মধ্যে পাঁচতারকা হোটেল দুটি এবং তিন তারকা মানের রিসোর্ট পাঁচটির বেশি।

শ্রীমঙ্গল কলেজ রোডে গ্রিন লীফ গেস্টহাউসের স্বত্বাধিকারী এবং শ্রীমঙ্গল পর্যটন সেবা সংস্থার সাংগঠনিক সম্পাদক এসকে দাস সুমন বলেন, `আমরা ব্যক্তিগত উদ্যোগে গড়ে তুলেছি রিসোর্ট-কটেজ, সরকার সেখান থেকে অনেক রাজস্ব পাচ্ছে, কিন্তু করোনার সময় আমরা কোন সহযোগিতা পাচ্ছি না। আমাদের ব্যাংক লোন কয়েক কোটি টাকা, আমরা কীভাবে সেগুলো পরিশোধ করব। এখন পর্যন্ত সব রিসোর্ট কটেজে ৭০ ভাগ কর্মচারী ছাঁটাই করা হয়েছে, তাঁরা বেকার হচ্ছে। এর মধ্যেও বাকি কর্মচারী ও ম্যানেজারকে বেতন নিয়মিত দিচ্ছি। শুধু হোটেল-মোটেল নয়, জেলার কৃষিপণ্য ও চা ব্যবসা পর্যটন খাতের ওপর নির্ভরশীল। পর্যটকরাই শ্রীমঙ্গলের লেবু, আনারস, চা ও মণিপুরী শাড়িসহ হাতে বানানো বিভিন্ন সামগ্রীর মূল ক্রেতা। কিন্তু কোভিড-১৯ রোগের প্রাদুর্ভাবে সবখানে মন্দাবস্থা।’ 

মৌলভীবাজার শহরের হোটেল রেস্ট ইন এর ব্যবস্থাপক সতরোজিত আচার্য  জানান, গত বছর মাঝে মাঝে পর্যটকেরা আসতেন। এ বছর  শূন্যই বলা চলে। জরুরি কাজে বিশেষ কেউ আসলে হোটেলে ওঠেন, এ ছাড়া কেউ আসে না। আগের তুলনায় ৯৫ শতাংশ আয় কমে গেছে বলে জানান তিনি। 

মৌলভীবাজার জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন জানায়, শুধুমাত্র শ্রীমঙ্গল উপজেলায় তাঁদের এক হাজার ৩৭০ জন নিবন্ধিত শ্রমিক আছেন। তাঁদের মধ্যে ৬০০-৭০০ জন কার, মাইক্রোবাস, জিপ বা অন্য বাহনের চালক। করোনাভাইরাসের কারণে যানবাহন চলাচল বন্ধ। বিধিনিষেধ শিথিল হলেও পর্যটক না থাকা ও মানুষের চলাচল কম থাকায় তাঁদের দুর্দিন কাটছে না। 

জেলা প্রশাসক মীর নাহিদ আহসান জানান, এই জেলা দেশের পর্যটন শিল্পের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এখানে পর্যটন নির্ভর লোকের সংখ্যা বেশি। লকডাউনের কারণে ক্ষতির মুখে পড়া পর্যটন সংশ্লিষ্টদের সহায়তার বিষয়ে সরকারের ঊর্ধ্বতন দপ্তরে অবহিত করা হয়েছে। 

বিনিউজবিডি.ডটকম

আধুনিক বাংলাদেশ গড়ার দৃঢ় প্রত্যয়ে সংবাদ পরিবেশনে দৃঢ় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ নিয়ে “বিনিউজবিডি.ডটকম” বাংলাদেশের প্রতিটি বিভাগ, জেলা, উপজেলা, গ্রামে-গঞ্জে ঘটে যাওয়া দৈনন্দিন ঘটনাবলী যা মানুষের দৃষ্টি ও উপলব্ধিতে নাড়া দেয় এরূপ ঘটনা যেমন, শিক্ষা,স্বাস্থ্য, পরিবেশ, সামাজিক উন্নয়ন, অপরাধ, দুর্ঘটনা ও অন্যান্য যে কোন আলোচিত বিষয়ের দৃষ্টি নন্দন তথ্য চিত্রসহ সংবাদ পাঠিয়ে সাংবাদিক হিসেবে নিজেকে আত্ম প্রকাশ করুন।

প্রতি মুহুর্তের খবর মুহুর্তেই পাঠকের মাঝে পৌছে দেয়ার লক্ষ্য কাজ করে যাচ্ছে একঝাঁক সাহসী তরুণ সংবাদ কর্মী। এরই ধারাবাহিকতায় স্বল্প সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ সহ দেশের বাহিরে বিভিন্ন দেশে সংবাদদাতা নিয়োগ দেয়া হচ্ছে।

বিদেশের মাটিতে অবস্থানরত লেখা-লেখিতে আগ্রহী যে কোনো বাংলাদেশীও প্রবাসী নাগরিক “বিনিউজবিডি.ডটকম” এর সংবাদদাতা/প্রতিনিধি হিসেবে আবেদন করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *